ঢাকামঙ্গলবার , ২৩ এপ্রিল ২০২৪
  • অন্যান্য

মদনে বাম্পার ফলনে খুশি কৃষক ২৯৮৩১ পরিবার।

আজকের বিনোদন
এপ্রিল ২৩, ২০২৪ ১০:২৪ পূর্বাহ্ণ । ৬১ জন
Link Copied!
দৈনিক আজকের বিনোদন সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

lশহীদুল ইসলাম নেত্রকোনা প্রতিনিধিঃ
নেত্রকোনা মদন উপজেলার নিম্নাঞ্জলে পুরোদমে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। বাম্পার ফলনে হাসি ফুটেছে ২৯৮৩১কৃষক পরিবারে। চাষিরা বলছেন,এবারই প্রত্যাশার চেয়ে বেশি ধান গোলায় তুলবেন। হাওরজুড়েই উৎসবের আমেজ। ধান কাটা মারায়ে সিদ্ধ দেওয়া আর শুকানোর কাজে ব্যস্ত কিষাণ কিষাণী। ভালো ফলন আবহাওয়া অনুকূলে থাকার পাশাপাশি ন্যায্য মূল্য পাচ্ছেন কৃষকরা। উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়,২০হাজার ৯শত ষাট হেক্টর বোরো আবাদ করা হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় প্রায় ১লক্ষ ১৯হাজার মেট্রিক টন ধান। টাকার হিসেবে প্রতি টন ধানের বাজার মূল্য ধরা হয়েছে ৩০ হাজার টাকা। সেই হিসাবে মোট মূল্য ৩৫ কোটি ৭০ লক্ষ টাকা। মদন উপজেলার গোবিন্দশ্রী গ্রামের কৃষক মো লাহুত মিয়া ধানের বাম্পার ফলনে ভীষণ খুশি। তিনি জানান,এ বছর ৪০ কাঠা জমিতে ব্রি-৮৮ ও ব্রি- ১০৮ জাতের আবাদ করেছেন। ২০কাঠা জমির ধান কাটা মাড়াই ও শুকানোর পর গোলায় তুলেছেন। সব মিলিয়ে ৩-৪শ মণ ধান পাওয়ার আশা করছেন। এ বিষয়ে মদন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোঃ হাবিবুর রহমান এ প্রতিনিধিকে বলেন,উপজেলায় ছোট বড় ৩১টি হাওরসহ নিম্নঞ্জলে এবার ২০ হাজার ৯শত ষাট হেক্টর বোরো আবাদ করা হয়েছে। এর মধ্যেই ২০শতাংশ ব্রি-২৮ জাতের ধান। বাকি সব ব্রি-৮৮ ব্রি-৮৯, ৯২,১০০,হাইব্রিড তেজগোল্ড,হীরা-২ বনজরাজ,বিনা-২৫,সুবর্ণা-৩,১০সহ উচ্চ ফলনশীল হাইব্রিড ধান। এসব ধানের জীবনকাল ১৪৫ দিন। তিনি আরো বলেন,শ্রমিকের পাশাপাশি নেত্রকোনা মদন উপজেলায়২৯,৮৩১ কৃষক পরিবারের জন্য প্রায় শতাধিক হার্ভেস্টার,কম্বাইন মেশিন দিয়ে ধান কাটা চলছে। প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না হলে মে মাসের মধ্যভাগে হাওরের আবাদ করা শতভাগ জমির ধান কাটা সম্ভব। গতকাল সোমবার উপজেলার গোবিন্দশ্রী হাওরে কয়েকজন কৃষকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,২০১৭ সালে হাওরের ব্যাপক ফসল হানির পর গত দুই বছর ধরে কোন প্রাকৃতিক দুর্যোগ ছাড়াই গোলায় ধান তুলতে পারছেন তারা। এবারও ক্ষেত থেকে উৎসবের আমেজে ধান সংগ্রহ করেছেন। প্রত্যাশার চেয়ে বেশি ধান পাবেন বলে হাওরজুরে অন্যরকম এক উৎসব চলছে। দিনরাত ব্যস্ত হাওরের কৃষক পরিবারে লোকজন। যেভাবে ধান কাটা হচ্ছে,চলতি মাসের শেষের দিকেই ৯০% কাটা শেষ হবে বলে আশা করছেন কৃষকরা। হাওর থেকে হারভেস্টার দিয়ে ধান কেটে ও মাড়াই করে এনে একেবারে জমির পাশে প্লাস্টিক বা চটের (ছালা) বস্তায় করে রাখা হয়েছে। মদন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শাহ আলম মিয়া এ প্রতিনিধিকে বলেন,প্রতিবছরের মতো এবারও উপজেলায় ৪ কোটি ৪৯ লক্ষ  টাকার বোরো ফসল রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) ২৫টি বাঁধ নির্মাণ এবং মেরামত করে। কৃষকদের নিয়ে গঠিত পিআইসি কমিটি এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। যথা সময়েই মদন উপজেলার বাঁধ নির্মাণ এবং মেরামতের কাজ শেষ করা হয়েছে।