ঢাকাসোমবার , ১০ জুন ২০২৪
  • অন্যান্য

সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে বিদ্যালয় মাঠে কোরবানি পশুর হাট।

আজকের বিনোদন
জুন ১০, ২০২৪ ৪:৩১ অপরাহ্ণ । ২০ জন
Link Copied!
দৈনিক আজকের বিনোদন সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কালিগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি :
গাজীপুরের কালীগঞ্জে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে নুরুন উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে পশুর হাট বসিয়েছে ইজারাদার মো. রফিকুল ইসলাম। তিনি ওই বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন প্রধানের বড় ভাই।
জানা গেছে, রবিবার (৯জুন) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে দরপত্রের মাধ্যমে অস্থায়ী পশুর হাট ইজারা দেওয়া হয়। সেখানে ইজারাদার মো. রফিকুল ইসলাম “নরুন বাজার পশুর হাট” নামে একটি পশুর হাট ইজারা  নেন। পরে তিনি সোমবার (১০জুন) বিকেলে নরুন উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে ওই হাট বসান। আগামী শুক্রবার (১৪ জুন) পুনরায় হাটটি বসবে বলেও জানা গেছে।
বিদ্যালয়ের মাঠে পশুর হাট বসানোর ফলে, বৃষ্টির পানির সাথে গরুর বর্জ্য একাকার হয়ে মাঠের চিত্র বদলে গেছে। এতে করে দুর্গন্ধে পরিবেশ নষ্ট হচ্ছে। পাশাপাশি মাঠটি খুড়াখুড়ির ফলে বিভিন্ন জায়গায় বড় বড় গর্ত তৈরি হয়েছে। এতে করে বিদ্যালয়ের ছাত্রদের বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আশঙ্কা রয়েছে, তার সাথে মানুষ এবং গরুর পায়ের চাপে কর্দমাক্ত হয়ে যাচ্ছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক বলেন,  স্থানীয় নেতাকর্মীদের সহযোগিতায় প্রভাবশালী একটি মহল এই হাট কয়েক বছর ধরে বসিয়ে আসছেন। এতে করে বিদ্যালয়ের মাঠের অনেক ক্ষতি হচ্ছে। আমরা স্কুলে চাকরি করি বলে এর বিরোধিতা করতে পারছি না।
বিদ্যালয় মাঠে পশুর হাট বসানোর বিষয়ে জানতে চাইলে স্কুলের প্রধান শিক্ষক আশুতোষ চন্দ্র দাস বলেন, আমি গত জানুয়ারি মাসে এই বিদ্যালয়ে যোগদান করেছি। যেহেতু এখানে চাকরি করি সেহেতু অনেক কিছু কম্প্রোমাইজ করেই চলতে হয়। এই ব্যাপারে আমার কোন হাত নেই। দয়া করে আমাকে এড়িয়ে সংবাদ প্রকাশ করবেন।
বিদ্যালয় কমিটির সভাপতি মো. মোশারফ হোসেন প্রধানের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।
এ বিষয়ে ইজারাদার মো. রফিকুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বিদ্যালয়ের ভিতরে আরেকটি মাঠ  রয়েছে। রাস্তার পাশে যে মাঠটি রয়েছে বেশ কয়েক বছর ধরেই এখানে গরুর হাট বসছে। তার জের ধরেই এখানে হাট বসিয়েছি।
তবে সংবাদ প্রকাশ না করার জন্যও অনুরোধ করেন‌ ওই ইজারাদার।
এ বিষয়ে কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বলেন, বিষয়টা আমার জানা ছিল না। এইমাত্র জানলাম। দ্রুত এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করব।