ঢাকারবিবার , ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য

নরসিংদীতে খুনের ৪ ঘন্টার ব্যবধানে খুনীকে গ্রেপ্তার করলো পুলিশ

আজকের বিনোদন
ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০২৪ ১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ । ৮২ জন
Link Copied!
দৈনিক আজকের বিনোদন সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আশিকুর রহমান :-

নরসিংদীর সদর উপজেলায় স্বামী কর্তৃক স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ৪ ঘন্টার ব্যবধানে ঘাতক স্বামীকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে নরসিংদী মডেল থানা পুলিশ। এসময় তার কাছ থেকে হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত ১টি রক্তমাখা ছোরা উদ্ধার করা হয়।
রবিবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) দুপুরে থানা প্রাঙ্গণে এক সংবাদ সন্মেলনের মাধ্যমে তথ্যটি নিশ্চিত করেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) কে এম শহিদুল ইসলাম (সোহাগ)।
গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তি হলেন, ব্রাহ্মনবাড়িয়ার বাঞ্ছরামপুর উপজেলার দুলারামপুর গ্রামের মৃত জীবন মিয়ার ছেলে রওশন মিয়া (৫০)।
অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কে এম শহিদুল ইসলাম জানান, শনিবার রাত অনুমান ৮ টার দিকে সদর উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকায় পারিবারিক বিভিন্ন জের ধরে ঘাতক স্বামী রওশন মিয়া ঘরের দরজা বন্ধ করে ভিকটিম রুনা বেগম (৪৫) কে ধারালে অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুত্বর কাটা রক্তাক্ত জখম করে পালিয়ে যায়। তার চিৎকারে আশপাশের লোকজন গুরুত্বর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনার পরপরই জেলা পুলিশ সুপার মোস্তাফিজ রহমান (পিপিএম) বিষয়টি আমলে নিয়ে তার দিকনির্দেশনায় এবং সদর সার্কেল এর সহায়তায় নরসিংদী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তানভীর আহমেদের নেতৃত্বে উপপরিদর্শক আজিজুল ইসলাম, উপপরিদর্শক অভিজিৎ চৌধুরী, উপপরিদর্শক আব্দুল গাফফার, উপপরিদর্শক শামীম হোসেন, উপপরিদর্শক আদনান রহমান, দীপক কুমার সরকার সহ সঙ্গীয় ফোর্সের সমন্বয়ে গঠিত একটি চৌকস দল তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে নৃশংস হত্যাকান্ড ঘটনার ৪ ঘন্টার ব্যবধানে ঘটনার মূল আসামী রওশন মিয়াকে মেঘনা নদীপাড়ের হাজীপুর বেঙ্গলের নদীঘাট দিয়ে নৌকা যোগে ব্রাহ্মনবাড়িয়ার উদ্দেশ্যে পলায়ন করার পথে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি আরও জানান, আসামী রওশন মিয়াকে প্রাথমিক জিজ্ঞেসাবাদকালে সে জানান যে, পারিবারিক কলহের কারণেই তার স্ত্রী রুনা বেগমকে সে একা ছোরা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছেন। এ ঘটনায় নিহতের ভাই থানায় মামলা দায়ের করেছেন এবং আসামীকে আদালতে সোপর্দ করা প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।
উল্লেখ, শনিবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে সদর উপজেলার হাজীপুর ইউনিয়নের চকপাড়া এলাকায় স্বামীর ধারালো ছোরার আঘাতে রুনা বেগম (৪২) নিহত হয়। সে পৌর শহরের বেপারীপাড়া এলাকার করিম মিয়ার মেয়ে। নিহত রুনার সাবেক স্বামী রৌশন মিয়া রুনাকে হাজীপুর চকপাড়া এলাকার তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। সেখানে দুই জনের মধ্যে কথাকাটাকাটি ও ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে তার স্বামী ঘরের দরজা বন্ধ করে রুনাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে প্রথমে কুপিয়ে হত্যা করে। ওই সময় ঘরের মধ্যে হৈচৈ ও চিৎকারের শব্দ শুনে আশপাশের লোকজন এগিয়ে গেলে রৌশন মিয়া সবার সামনে দিয়েই দৌড়ে পালিয়ে যায়। পরে রুনাকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।