ঢাকাসোমবার , ১১ মার্চ ২০২৪
  • অন্যান্য

নওগাঁয় কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে দু’জন গৃহবধূ’র ঝুলন্ত মৃতদেহ সহ দু’জন যুবক, মোট ৪ জনের মৃতদেহ উদ্ধার

আজকের বিনোদন
মার্চ ১১, ২০২৪ ২:০০ অপরাহ্ণ । ১৫১ জন
Link Copied!
দৈনিক আজকের বিনোদন সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

শহিদুল ইসলাম জি এম মিঠন, স্টাফ রিপোর্টারঃ
নওগাঁয় মাত্র কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে ঝুলন্ত  অবস্থায় দুই গৃহবধূ সহ আরো দুই যুবক মোট ৪ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।
পারিবারিক বিরোধ সহ স্বামী-স্ত্রীর মান-অভিমান থেকে গলায় ওড়না ও দড়ির ফাঁসদিয়ে দুই গৃহবধূ ও গ্যাস বড়ি খেয়ে দুই যুবক আত্নহত্যা করেছেন বলেই প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছেন স্থানিয়রা সহ থানা পুলিশ। নিহত ৪ জন হলেন, নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার নাইখট্টি গ্রামের আতিকুল ইসলাম এর স্ত্রী
তানজিলা আক্তার (৩০), একই উপজেলার পাতনা গ্রামের আঃ হামিদ এর স্ত্রী সেতারা বানু (২৬) ও চকরাজা গ্রামের ইউনুচ আলীর ছেলে সবুজ হোসেন (২৩) এবং নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার বরবাড়িয়া গ্রামের মাজেদুর রহমানের ছেলে শরিফুল ইসলাম (২৮)।
মহাদেবপুর থানা ও নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়ি সহ স্থানিয় সুত্রে জানাগেছে, রবিবার বিকেলে মহাদেবপুর উপজেলার নাইখট্টি গ্রামের আতিকুল ইসলাম এর স্ত্রী তানজিলা আক্তার (৩০) এর গলায় দড়ির ফাঁস দেওয়া ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পেয়ে থানায় খবর দেন। খবর পেয়ে থানা পুলিশ দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছান। এখবর পেয়ে মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রুহুল আমিন সঙ্গীয় অফিসার ফোর্স সহ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করার পর পুলিশ ঘটনাস্থলে প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্ট অন্তে ময়না তদন্তের জন্য ঘটনাস্থল থেকে গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করেন। অপরদিকে শনিবার বিকেলে মহাদেবপুর থানাধীন নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়ি এলাকার ভীমপুর ইউনিয়ন এর পাতনা গ্রামের আঃ হামিদ এর স্ত্রী সেতারা বানু (২৬) এর গলায় ওড়নার ফাঁস দেওয়া ঝুলন্ত মৃতদেহ দেখতে পেয়ে স্থানিয়রা মহাদেবপুর থানা ও নওহাটামোড় ফাঁড়ি পুলিশ কে জানান। খবর পেয়ে নওহাটামোড় পুলিশ ফাঁড়ির এস আই আকবর সঙ্গীয় ফোর্স সহ ঘটনাস্থলে পৌছে প্রাথমিক সুরতহাল রিপোর্ট অন্তে মৃতদেহ উদ্ধার পূর্বক নওগাঁ সদর হাসপাতাল মর্গে নিয়ে ময়না তদন্ত শেষে রবিবার বিকেলে মৃতদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করেন পুলিশ। ঐ দিনই অল্প সময়ের ব্যবধানে একই ইউপির চকরাজা গ্রামের ইউনুচ আলীর ছেলে সবুজ হোসেন (২৩) নামে এক যুবক গ্যাস বড়ি খেয়ে মারা গেছেন এমন খবর পেয়ে নওহাটামোড় ফাঁড়ি পুলিশ সেখানেও দ্রুত পৌছান। দুই গৃহবধূ ও এক যুবক মোট ৩ জনের মৃত্যুর সত্যতা নিশ্চিত করে মহাদেবপুর থানার অফিসার ইনচার্জ রুহুল আমিন বলেন, চকরাজা গ্রামে গ্যাস বড়ি খেয়ে যুবক সবুজ হোসেন এর মৃত্যুর ঘটনায় পরিবার সহ আত্বীয় স্বজন কারো কোন অভিযোগ নেই। এছাড়া দুই গৃহবধূ মৃত্যুর ঘটনায় আইনানুগ পক্রিয়া চলছে। অপরদিকে পুলিশ ও স্থানিয় সুত্রে জানাগেছে, পারিবারিক বিরোধের জেরধরে গলায় দড়ি ও ওড়না’র ফাঁস দিয়ে দুই গৃহবধূ আত্নহত্যা করেছেন বলেই প্রাথমিক ভাবে ধারনা করছেন তারা। এছাড়া যুবক সবুজ হোসেন তার স্ত্রী পিতার বাড়ি থেকে না আসায় স্ত্রীর উপর অভিমান করে গ্যাস বড়ি খেয়ে আত্নহত্যা করেছেন এমন টা জানিয়ে তার পিতা বা স্বজন পক্ষ কেউ কোন অভিযোগ করেন নি। অপরদিকে নওগাঁর রাণীনগর উপজেলার বরবড়িয়া গ্রামের মাজেদুর রহমান এর ছেলে শরিফুল ইসলাম গ্যাস বড়ি খেয়ে আত্নহত্যা করার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।
রাণীনগর থানায় দায়েরকৃত মামলা ও স্থানীয় সুত্রে জানাগেছে,শরিফুল ইসলাম গত ৬ বছর আগে একই উপজেলার করজগ্রাম টুংকুড়ি পাড়া গ্রামের আছির উদ্দীনের মেয়ে আরজিনার (২৬) সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের প্রায় ৬ মাস পর নানা প্রলোভনে স্বামী শরিফুলের নামীয় দু’ বিঘা জমি লিখে নেয় স্ত্রী আরজিনা বিবি। এর পর থেকে স্বামী কে নানা ভাবে অবহেলা করতে থাকে। এক পর্যায়ে স্ত্রী আরজিনা বিবি লিখে দেয়া জমি ফেরত না দিয়েই গত ২০২২ সালের মার্চ মাসে স্বামীকে তালাক দেন। এরপরেও শরিফুল তার স্ত্রীর সাথে যোগাযোগ করতে থাকে। এসময় স্ত্রী আরজিনা স্বামী শরিফুলকে আত্মহত্যা করতে নানাভাবে প্ররোচিত করে। গত শনিবার বিকেলে স্বামী শরিফুল ইসলাম তার সাবেক স্ত্রীর বাবার বাড়ী করজ গ্রামে গেলে সেখানেও নানাভাবে তুচ্ছ-তাচ্ছিল করে চরম অবহেলা মুলক কথা বলে আত্মহত্যায় প্ররোচিত করে। এক পর্যায়ে শরিফুল ঘৃনা এবং অপমানবোধ মনে করে সেখানেই গ্যাসের ট্যাবলেট খেয়ে আত্মহত্যা করে। রাণীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আবু ওবায়েদ বলেন, আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে শরিফুলের বোন বাদী হয়ে রবিবার দুপুরে শরিফুলের সাবেক স্ত্রী আরজিনাকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছেন। শরিফুলের মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া আসামী পলাতক থাকায় তাকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়নি। তবে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।