ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪
  • অন্যান্য

অবৈধ স্থাপনায় পল্লী বিদ্যুতের সংযোগ

আজকের বিনোদন
ফেব্রুয়ারি ৮, ২০২৪ ১:১৫ অপরাহ্ণ । ১০৭ জন
Link Copied!
দৈনিক আজকের বিনোদন সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) প্রতিনিধি:
গাজীপুর কালীগঞ্জের বিল বেলাইয়ে নর্থ সাউথ গ্রুপের আবাসন প্রকল্পের অবৈধ স্থাপনাতে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে কালীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের বিরুদ্ধে। গত বছর শেষের দিকে আদালতের নির্দেশ মোতাবেক ওই প্রতিষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দেয় গাজীপুর সদর উপজেলা প্রশাসন। এরপর তাদের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ এবং বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়। কিন্তু কোন এক অজানা কারনে পুণরায় সেই সংযোগ দেয় পল্লী বিদুৎ কালীগঞ্জ অফিস।
জানা গেছে, উপজেলার নলছাটা এলাকার বিল-বেলাইয়ে বেশ কিছু বছর ধরে আবাসন প্রকল্পের নামে ২টি প্রতিষ্ঠান অবৈধভাবে কৃষি জমি ও বিল ভরাটের চেষ্টা চালিয়ে আসছিল। অভিযোগ রয়েছে এসব প্রতিষ্ঠান জমির মালিককে ভুল বুঝিয়ে প্রথমে জমি বায়না করে সেখানে সাইনবোর্ড স্থাপন করে। পরে সেই জমির পাশাপাশি অন্যের জমিতেও রাতের আঁধারে বালু ভরাট করতে থাকে। এর প্রেক্ষিতে গত বছর ১৯ আগস্ট গাজীপুর সদর উপজেলা প্রশাসন উচ্চ আদালতের নির্দেশ একটি সাইনবোর্ডের প্রতিষ্ঠানটির সামনে স্থাপন করে এবং তাদের যাবতীয় কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ দেয়। কিন্তু সেই নির্দেশ অমান্য করে ওই প্রতিষ্ঠান জলাধার ও কৃষি জমিতে বালু ফেলা চলমান রাখে। পরে ৭ সেপ্টেম্বর প্রশাসন তা ভেকু দিয়ে স্থাপনা গুড়িয়ে দেয়ার পাশাপাশি বিদ্যুৎ সংযোগ ও বিচ্ছিন্ন করে দেয়। কিন্তু অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানটি পল্লী বিদ্যুত অফিসকে ম্যানেজ করে পুণরায় অবৈধভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ গ্রহণের অভিযোগ উঠে।
এ ব্যাপারে কথা হয় কালীগঞ্জ পল্লী বিদ্যুৎ অফিসের উপ মহব্যাবস্থাপক মো. আক্তার হোসেনের সাথে। তিনি জানান, বাংলাদেশে যদি কারো জাতীয় পরিচয় পত্র থাকে তাহলে তাকেই তিনি বিদ্যুৎ দিতে বাধ্য। উচ্চ আদালতের নির্দেশে কোন স্থাপনা অবৈধ ঘোষণা হলে সেখানে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া যায় কিনা এমন পশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, সেটা যায়না। আমরা তাদের লাইন কেটে দিয়েছিলাম। কিন্তু তারা তাদের সিকিউরিটির জন্য পুণরায় সংযোগের আবেদন করে। তাই পুণরায় তাদের সংযোগ দেই। তাছাড়া বিষয়টি আমি ইউএনও স্যারকে জানিয়েছিলাম, তিনি আমাকে বিধি মোতাবেক সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন।
এ ব্যাপারে কালীগঞ্জ উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আজিজুর রহমান বলেন, ডিজিএম আমাকে জিজ্ঞেস করার পর আমি বলেছি তাঁকে বিধি মোতাবেক সংযোগ দেওয়ার জন্য। যেহেতু স্থাপনা অবৈধ সেটির সংযোগও অবৈধ হওয়ার কথা। আমি বিষয়টি জেনে দ্রুত সময়ের মধ্যে ব্যাবস্থা গ্রহণ করবো।