ঢাকাবুধবার , ২৪ জানুয়ারি ২০২৪
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের কোটি টাকা লাপাত্তা, সইতে না পেরে সেলস ম্যানেজারের আত্মহত্যা

আজকের বিনোদন
জানুয়ারি ২৪, ২০২৪ ১:৪৪ পূর্বাহ্ণ । ১০৭ জন
Link Copied!
দৈনিক আজকের বিনোদন সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন গুগল নিউজ (Google News) ফিডটি

আশিকুর রহমান :-

নরসিংদীর রায়পুরায় ডাচ্-বাংলা এজেন্ট ব্যাংকিং গ্রাহকদের কোটি টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার জেরে ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তার চাপ সইতে না পেরে বিষপানে আত্মহত্যা করেন ওই ডাচ-বাংলা এজেন্ট ব্যাংকিং সেলস ম্যানেজার আব্দুল কাইয়ুম (৪৫) নামে একব্যক্তি। অভিযোগ নিহত স্বজনদের।

সোমবার (২২ জানুয়ারি) রাত ১১টায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। নিহত ব্যক্তি রায়পুরা উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের বীরশ্রেষ্ঠ মতিউরনগর গ্রামের বাসিন্দা।
নিহতের মেয়ে কানিজ হালিমা কনক প্রতিনিধিকে বলেন, গ্রাহকদের আমানতের কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হন উপজেলা আলগী বাজারের এজেন্ট ব্যাংকিংয়ের উদ্যোক্তা শহীদুল ইসলাম লিটন।
এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হলে শত শত গ্রাহক তাদের আমানত ফেরত পেতে ব্যাংকের আউটলেটের সামনে ভিড় জমায়। ব্যাংকের আরএম রেদোয়ান তৌহিদুল ইসলাম ওই ঘটনার যাবতীয় দায় আমার বাবা আব্দুল কাইয়ুমের উপর চাপিয়ে দিয়ে গ্রাহকদের সমুদয় অর্থ ফেরত দিতে বলেন। এতে তিনি মানসিকভাবে ভেঙে পড়েন।
একপর্যায়ে চাপ সইতে না পেরে তিনি গত শনিবার বিষপান করেন। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। সেখানে তিনি চিকিৎসা অবস্থায় মারা যান। এ ঘটনায় আব্দুল কাইয়ুমের মৃত্যুতে ব্যাংক কর্মকর্তা রেদোয়ান তৌহিদুল ইসলামের বিচার দাবি করেন নিহতের পরিবার ও স্বজনরা। এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত কর্মকর্তা (আরএম) রেদোয়ান তৌহিদুল ইসলামের মুঠোফোনে একাধিকার কল দিয়েও তা বন্ধ থাকায় যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। পরে ডাচ্-বাংলা ব্যাংক নরসিংদী শাখার ম্যানেজার মোঃ আনিসুর রহমানের সঙ্গে কথা হলে তিনি বিষয়টি কৌশলে এড়িয়ে যান এবং ব্যাংকের হেড অফিসে যোগাযোগ করার পরামর্শ দেন।
এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ১০টা পর্যন্ত থানায় মামলা করতে নিহতের স্বজনদের কেউ আসেনি বলে জানান রায়পুরা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মীর মাহাবুব রহমান।
সম্প্রীতি ডাচ্ বাংলা ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং রায়পুরা শাখা থেকে শহিদুল ইসলাম লিটন নামে ব্যাংকের এক উদ্যোক্তা গ্রাহকের কোটি টাকা নিয়ে লাপাত্তা হোন। তিনি উপজেলার রাধানগর ইউনিয়নের লক্ষীপুর গ্রামের বাসিন্দা। এ ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছেন তিনি। ঘটনাটি ঘটে ২১ জানুয়ারি (রবিবার)। খবর পেয়ে ওই শাখায় ছুটে আসেন গ্রাহকরা। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, গ্রাহকরা তাদের অনলাইনে নিজের হিসাবে টাকা দেখতে না পেয়ে, কান্নায় ভেঙে পড়েন অনেকে। এসময় এজেন্ট ব্যাংকিং ইনচার্জ ও অন্যান্য কর্মচারীদের কাছে তাদের জমা রাখা টাকা দাবি করেন তারা। স্থানীয় ও ভুক্তভোগী গ্রাহক সূত্রে জানা গেছে, সর্বত্রই ডাচ্ বাংলা ব্যাংকের সুনাম রয়েছে। বিশ্বস্ত হিসেবে অনেকেই এজেন্ট ব্যাংকিং আউটলেটে টাকা ফিক্সড ডিপোজিট করেছিলেন। তাদেরকে জমা রশিদও দেয়া হয়েছিল। কিন্তু ব্যাংকের উদ্যোক্তা শহিদুল ইসলাম লিটন অধিকাংশ গ্রাহকদের টাকা না জানিয়ে সুকৌশলে ওই টাকা মূল শাখায় জমা না দিয়ে নিজের একাউন্টে রেখে কয়েক কোটি টাকা আত্মসাৎ করে পালিয়ে যায়।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রোজলিন শহিদ চৌধুরী বলেন, ‘বিষয়টির কথা শুনেছি। ভুক্তভোগীদের সর্বাত্মক সহযোগিতা আমাদের কাজ। অভিযোগ পেলে ডাচ্ বাংলা ব্যাংকের লোকদের সাথে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীয় সহায়তা দেয়ার চেষ্টা করবে বলে জানান।